ইউটিউব চ্যানেল খোলার পর কমন পাঁচটি যে ভুল করে সবাই – আপনি করছেন না তো?

টিপস অ্যান্ড ট্রিক্স

ইউটিউব চ্যানেল হচ্ছে এমন একটা প্লাটফর্ম, যেখানে মার্কেটিং কিংবা ভিডিও শেয়ার করতে কোন ধরনের টাকা লাগে না কিংবা কোন ইনভেস্টমেন্ট এর প্রয়োজন হয় না। আপনি৷ ০ ইনভেস্টমেন্ট এখানে কাজ শুরু করে প্রফিট জেনারেট করতে পারবেন। সাধারণত কোন একটি পেজ তুলতে গেলেও আমাদের অনেক টাকা বুস্ট করে খরচ করতে হয়। অথবা আমরা কোন একটি ওয়েবসাইট বানাতে গেলে সেখানে আমাদের হোস্টিং এবং ডোমেইন কিনে খরচ করতে হয়। কিন্তু ইউটিউব চ্যানেল হচ্ছে আমরা একটা প্লাটফর্ম যেখানে করা হচ্ছে কোনো খরচ ছাড়াই আপনি কাজ শুরু করতে পারবেন।

আবার এইখানে কাজ করার সময়, আমরা সাধারণত যে ৫টি মারাত্মক ভুল করে থাকি। সে পাঁচটি ভুল যদি না করি তাহলে অবশ্যই আমরা এখানে সফলতা অর্জন করব। তাহলে আসুন আমরা জেনে নিই কোন পাঁচটি মারাত্মক ভুল আমরা সকলেই কোন না কোন ভাবে করে থাকি।

প্রথম ভুলঃ

চ্যানেল খোলার পর ভালোভাবে এসিও না করা। এখন আপনাদের মনে প্রশ্ন আসতে পারে এসইও কিভাবে করা যায়। তাদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই এসইও আসলে অনেক প্রকার আছে। একেকটা সেক্টরে একেকরকম এস ই ও কাজ। কিন্তু ইউটিউব চ্যানেল এর ক্ষেত্রে এটি হচ্ছে আপনার ইউটিউব চ্যানেলে ভালোভাবে কাস্টমাইজ করে সাজাতে হবে। এবং টেক, টাইটেল, ডেসক্রিপশন এবং আপনার রিলেটেড বিস্তারিত আলোচনা করতে হবে।
এগুলো ঠিক ভাবে বসালেই আপনার ইউটিউব চ্যানেল পরিপূর্ণভাবে এসইও হয়ে যাবে। আর আমরা এই এসইও টি না করেই একটি ভুল করে থাকি।

দ্বিতীয় ভুলঃ

নতুন ইউটিউব চ্যানেল খোলার পর আমরা আমাদের বন্ধু-বান্ধবদেরকে বলি তারা যেন আমাদের ভিডিও গুলো প্লে করে দেখে। নতুন ইউটিউবাররা এই ভুলটি সর্বদায় করে থাকে। এটি একটি মারাত্মক এবং চরম লেভেলের ভুল। এটি সকলেই কোন না কোন ভাবে একবার হলেও করে। এটি আপনার চোখে ঠিক মনে হলেও ইউটিউবে চোখেতে স্প্যামিংয়ের আন্ডারে যাচ্ছে। তাই এধরনের কাজ কখনো করবেন না।

তৃতীয় ভুলঃ

অনেক সময় দেখা যায় আমরা আমাদের বন্ধু-বান্ধবদেরকে বলি তারা আমাদের ভিডিও গুলো প্লে করার সাথে সাথেই কমেন্ট করতে। বলা যায় এটিও একটি মারাত্মক লেভেলের ভুল তাই এ ধরনের ভুল আপনারা কখনো করবেন না। আপনার আশেপাশে কিংবা বন্ধু-বান্ধব কারো মোবাইল থেকে আপনি বারবারো কমেন্ট করবেন না। এটিও একপ্রকার স্প্যামিংয়ের আন্ডারে যাবে।

চতুর্থ ভুলঃ

নিজের ভিডিও নিজে বারবার প্লে করে দেখা। যখন আপনি আপনার একই ডিভাইস থেকে বারবার কয়েকটি ভিডিও প্লে করবেন। তখন ইউটিউব চ্যানেল সেটি বুঝতে পারবে। আর সবথেকে ইম্পর্ট্যান্ট কথা হচ্ছে আপনারা একি ওয়াইফাই থেকে যদি আপনি বারবার অন্য বিভিন্ন ডিভাইস থেকে ভিডিও প্লে করেন তাহলেও স্পামিং এর আন্ডারে হয়ে যাবে এবং চ্যানেলের রেংকিং হারাবে।

পঞ্চম ভুলঃ

সর্বশেষ যে ভুলটি আমরা করে থাকি সেটি হচ্ছে বিভিন্ন নানা ধরনের টপিক এবং নানা ধরনের ভিডিও আমরা আমাদের চ্যানেলে পাবলিশ করে থাকি। অবশ্যই মনে রাখতে হবে আমাদের চ্যানেলে কোন এক প্রকার ভিডিও পাবলিশ করতে হবে। তাহলে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল রেংক পাবে এবং কোনো না কোনোভাবে একটি ভিডিও ভাইরাল হলে আমরা ইউটিউবে সাকসেস হতে পারব। তাই কখনো নানা ধরনের টপিক নিয়ে ভিডিও বানানো যাবেনা। যেকোনো একটি টপিক সিলেক্ট করে ভিডিও বানাতে হবে।

তো বন্ধুরা আশাকরি ইউটিউব চ্যানেল সম্পর্কে আপনাদের সম্পূর্ণ ভুল ধারণা আজ থেকে সংশোধন হয়ে যাবে। এ ধরণের আরো নতুন নতুন টিপস এন্ড ট্রিক্স পেতে আমাদের সাথে যুক্ত থাকুন ধন্যবাদ সবাইকে সকলের সুস্থ এবং ভাল থাকবেন আল্লাহ হাফেজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *